ই বাংলা ডট টেক, প্রযুক্তির হাতেখড়ি হোক বাংলাতেই।

হ্যাকিং / সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক বাংলা প্রযুক্তির ব্লগ

Google সমাচার ( পর্ব ১ )




হঠাৎ চিন্তা হল গুগল নিয়ে কিছু লেখি ,  ইন্টারনেট ব্যাবহারকারীরা বলতে গেলে অধিকাংশই তাদের দিন শুরু করে গুগল দিয়ে ,  তো আর দেড়ি না করে গুগল নিয়েই বসে পড়লাম 
গুগলের সার্চ বক্সে সার্চ দিলাম Google 
ব্যাপারটা অনেকটা  নিজের কাছে নিজের খবর জিজ্ঞেসকরার মতই হয়ে গেল, তবে যাই হোক   গুগল নিয়ে ঘাটতে ঘাটতে বেড় করলাম অসংখ্য ঘটনা , সব হয়ত একপর্বে বলা সম্ভব হবে না , 
তো আসুন গুগলকে কিছু খুজতে না দিয়ে নিজেরাই শুরু করি  খোজাখুজি  

১৯৯৮ সালের ৪ অক্টোবর ,সকালে ক্যালিফোর্নিয়ার মেনলো পার্কের Susan Wojcick র গ্যারেজের দরজা খোলা হয় , সেই সাথে খুলে যায় বিশ্বের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান গুগলের  পথচলা  । গ্যারেজের মালিক সুজান ছিলেন  স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির পিএইচডি প্রোগ্রাম এর; দুই জন শিক্ষার্থী ল্যারি পেইজ ও সারজে ব্রিন এর বন্ধু  ,  এই দুজনের হাত ধরেই গরে উঠেছিল গুগল ।  যাত্রা শুরুর প্রাককালে দুই বন্ধু ছাড়াও  তাদের পাশে ছিলেন সান মাইক্রো সিস্টেমের সহ প্রতিষ্ঠাতা এন্ডি বেথটোশেইম । কোম্পানী দাড়ানোর আগেই তিনি ১ লাখ ডলার দেন। পরের বছরই জুন মাসে  দুটি কোম্পানী গুগলে আড়াই কোটি ডলার বিনিয়োগ করে। 
১৯৯৮ সালে গুগলের আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হলেও পরিকল্পনা  কিন্তু অনেক আগে থেকেই হয়েছে .১৯৬৬ সালেই  তারা কাজের পরিকল্পনা করে এবং সেটি অনুযায়ী এগোতে থাকে । সেই থেকেই এই দুই বন্ধুর পরিশ্রমের ফসল আজকের গুগল । গুগল শুধু মাত্র সার্চ ইঞ্জিন নয় , এটি একটি কোম্পানী , তবে সার্চইঞ্জিনই একে জনপ্রিয়তা বেশী দিয়েছে ।  গুগলের এই জনপ্রিয়তার কারন হল গুগল তাদের একটা স্পেশাল অলগরিদম (গানিতিক কার্যবিধি) ব্যবহার করে;যা ব্যবহারকারীদের সামনে অনুসন্ধান ফলাফল গুলো তুলে ধরে। যখন গুগল সাধারনভাবে এই অলগরিদম সম্পর্কে কথা বলে; তারা নির্দিষ্ঠভাবে অলগরিদমটির গোপনীয়তা রক্ষা করে। গুগল তাদের এই সার্চ ইঞ্জিন এর অলগরিদম রহস্য গোপন রাখার ফলে; অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন এর তুলনায় প্রতিযোগিতামূলকভাবে শক্ত অবস্হান ধরে রাখতে পারছে। এটা গুগলকে আরো সাহায্য করে হ্যাকিং ও বাহির থেকে সিস্টেম এর অপব্যবহার রোধ করতে; কেননা ভেতরের অলগরিদম এর ঘটনা সবারই অজানা।

অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন এর মতন গুগলও স্বয়ংকৃয় প্রোগ্রাম ব্যবহার করে; যা পরিচিত স্পাইডারস (spiders) ও ক্রয়লারস (crawlers) নামে।গুগল এর কাছে অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন এর তুলনায় তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি; ওয়েবসাইট ইনডেক্স ও কীওয়ার্ড ইনডেক্স করা রয়েছে। সেকারনে একজন সাধারন ব্যববহারকারী অন্যান্য   সার্চ  ইঞ্জিন এর তুলনায়; গুগলেই সবচেয়ে বেশি প্রাসঙ্গিক ফলাফল লাভ করে। গুগল পেজ র‍্যাংক  (PageRank) নামে একটি নিজস্ব অলগরিদম ব্যবহার করে; যা বিভিন্ন ওয়েবসাইটকে অটোমেটিং ক্রয়ল করে তাকে বিভিন্ন মানদন্ডে আলাদা করে।


গুগলের নাম কিন্তু  লিন্যাক্সের নামের মতই ভুলে করে হয়ে যাওয়া নাম ।  প্রথমদিকে গুগলের নাম দেয়া ছিল ব্যাকর‍্যাব । পরবর্তীতে এই নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় গুগল।  আমরা অনেকেই মাঝে মাঝে google বানান ভুল করে  Googol  লিখে ফেলি , মজা ব্যাপার হচ্ছে আমাদের ভুল করা এই শব্দটি ছিল ল্যারি ও সের্গের দেয়া নাম ,  ১৯৯৭ সালের ১৫ ই সেপ্টেম্বর ল্যারি পেইজ ও সের্গেই ব্রিন গুগল ডট কম নামে একটি ডোমেইন নিবন্ধন করেন। কিন্তু তারা যেই ডোমেইনটি নিবন্ধন করতে চেয়েছিলেন সেটি না হয়ে ভুলবশত নিবন্ধিত হয় “Google” নামে। Googol  এর মানে হচ্ছে ১ এর পরে ১০০ টি শূন্য , গানিতিক ভাষায় বলতে গেলে টেন টু দি পাওয়ার হান্ড্রেড ।  (10^100 = 10,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000, 000,000,000, 000,000,000, 000,000, 000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000, 000,000 )
তখন সবচেয়ে বড় হার্ডডিস্ক ড্রাইভের মেমোরি সাইজ ছিলো ৪ গিগাবাইট। তাই তারা কম দামে লেগো সেট দিয়ে বানানো একটি কেবিনেটে ১০টি হার্ড ড্রাইভের সমাবেশ ঘটান, গুগলের সার্চ ইনডেক্সের আকার ১০ কোটি গিগাবাইটেরও বেশি। কেউ যদি ব্যক্তিগতভাবে এই তথ্য জমা রাখতে চান, তবে তাঁর এক টেরাবাইট আকারের এক লাখ হার্ডড্রাইভের দরকার হবে।


গুগলের প্রথম দিকের হোম স্ক্রিন ছিল অনেকটাই সাদামাটা এর মূল কারন ছিল উদ্ভাবকরা তখন HTML এ অতটা দক্ষ ছিলেন না ,
১৯৯৯ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে গ্যারেজ থেকে সরে  ইউনিভার্সিটী এভিনিউ তে স্থানান্তরিত হয় গুগল । সেসময় এর কর্মচারীর সংখ্যা ছিল ৮ জন,পড়ে তা বেড়ে ৪০ হয়  , বর্তমানে প্রায় ১৬,০০০ লোকের কর্মসংস্থান জুগিয়েছে এই গুগল।

প্রতিনিয়ত গুগল তাদের সার্চ ইঞ্জিনে আনছে নতুনত্ব । এমনই একটী সংযোজন হচ্ছে ডুডল , যেকোন দেশের বিশেষ দিনে  সেই দেশের ডোমেইনেই ডুডল দেখানো হয় , আবার আন্তর্জাতিক দিবস গুগলতেও থাকে বিশেষ ডুডল।ল্যারি পেজ ও সের্গেই ব্রিন মিলে ১৯৯৮ সালের আগস্ট মাসে প্রথম ডুডল তৈরি করেন। ‘তাঁরা অফিসের বাইরে আছেন এবং এ সময় কারিগরি কোনো ত্রুটির সমাধান করা যাবে না’—এই বার্তা ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছানোর জন্য প্রথম ডুডলটি তৈরি হয়।
 ১৯৯৮ সালের ‘বার্নিং ম্যান ফেস্টিভ্যাল’-এর জন্য প্রথম ডুডলটির ডিজাইন করেন গুগলের দুই প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ ও সের্গেই ব্রাইন। তবে বর্তমানে লোগোর ডিজাইন করার জন্য গুগলের একটি বিশেষ টিম রয়েছে, এই টিমের সদস্যদের ডাকা হয় ডুডলার নামে।

( আগামী পর্বে সমাপ্ত )