ই বাংলা ডট টেক, প্রযুক্তির হাতেখড়ি হোক বাংলাতেই।

হ্যাকিং / সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক বাংলা প্রযুক্তির ব্লগ

রহস্যময় কিছু ইউটিউব চ্যানেল।



গুগোল , ইউটিউব ,ফেসবুক আমাদের জীবনের অংশ হয়ে গেছে , হাসি,আনন্দ,বিনোদন, শিক্ষা সবই এখন এর উপর নির্ভরশীল হয়ে যাচ্ছে , ইউটিউবের মধ্যে মানুশ নিজের মন মত ভিডিও আপলোড করতে পারে । তবে কিছু কিছু সময় তা হয় অন্যের ক্ষতির কারন , আজ আমরা দেখব আজব কিছু ইউটিউব চ্যানেল। তো আসুন ঘুরে আসি ইউটিউবের সেই  রহস্যময় কিছু ভিডিও চ্যানেল থেকে ।

১) WEBDRIVER TORSO 

আজব এই ইউটিউব চ্যানেলটিতে এখন পর্যন্ত মোট কয়েক হাজার ভিডিও আপলোড হয়েছে প্রতিটি ভিডিও ই মোটামোটি ১০ সেকেন্ড এর ভিডিও তে শুধু লাল আর নীল রঙ এর কিছু বক্স বিন্ন অবস্থানে দেখায়  এবং বিপ জাতীয়  তীক্ষ্ণ আওয়াজ হয়, কিছু সময় অন্তর অন্তর এইরকম ভিডিও আপলোড হয় , এখানের সর্বশেষ ভিডিওটি ৪ মাস আগে আপলোড হয়েছিল , আর পরে চ্যানেলটিতে আর কোন ভিডিও দেখা যায় নি ।
কি উদ্দ্যেশে এই চ্যানেলটি তৈরী বা কি উদ্দ্যেশে এইসব ভিডিও আপলোড তা যানা যায়নি হতে পারে এটি মানুষের সাথে করা এক রকমের কৌতুক অথবা এতে থাকতে পারে বিশেষ কোন গোপন কারন। 

২) NASA JIM 108

ভয়ংকর রোবোটিক কণ্ঠস্বরে তৈরী প্রতিটি ভিডিও তেই পাবেন এলিয়েন নিয়ে কিছু কথা , ২০০৮ সালে চালু করা এই চ্যানেলের  আপলোড করা হয় এই ভিডিও  সিরিজটি  যা কিনা নাসার সাবেক একজন কর্মকর্তার তৈরী বলে দাবী করা হচ্ছে , এলিয়েনের উপস্থিতি ও বিভিন্ন বিষয় এখানে তুলে ধরা হয়েছে ,  ভিডিও তৈরী কর্তার দাবী তিনি ১৯৮৯ থেকে ২০০৪ পর্যন্ত নাসায় কাজ করেছিলেন এবং নাসার অনেক সিক্রেট তার জানা রয়েছে । সবচেয়ে ইন্টারেস্টিং হচ্ছে এর এবাউট সেকশন যেখানে লেখা রয়েছে  " These are a series of videos that my client requested to be released after his death.'

৩) MS. PORCELAIN DOLL

রিং , ইনসিডাস , এনাবেলা ইত্যাদি জনপ্রিয় হলিউড হরর মুভিতে কিছু ভিডিও ক্লিপ বা পুতুল ইত্যদি জিনিস দেখে বেশ ইন্টারেস্ট ফিল করেছেন যারা তাদের জন্যই এই চ্যানেল , ভৌতিক কিছু নিয়ে তৈরী এই চ্যানেলটির সর্বশেষ ভিডিওটি আপলোড হয়েছে ৯ ঘন্টা আগে   ( যখন আমি এই ব্যাপারে লেখছি সে সময় থেকে  ) , এবাউটে কিছুই লেখানেই।

৪) ROBERT HEPLMANN

এই চ্যানেলটি উপরের দেয়া সবগুলো চ্যানেল থেকে আলাদা , আদৌ যদি সত্যি হয়ে থাকে তবে ভিডিও নির্মাতা বিকৃত মস্তিষ্কের মানুষ ছাড়া আর কিছুই নয় ,  কি কারনে কি উদ্দ্যেশে তা জানা নেই তবে শুনলে আপনারাও চমকে উঠবেন , এই চ্যানেলের ভিডিওতে ২ জন থাকে একজন হল ভিডিওর প্রধান চরিত্র রবার্ট , আরেকজন  হচ্ছে ডেইজি । আশ্চর্জজনক ব্যাপার হয় ডেইজি একটি লাশ , সকল ভিডিও ই সেই কালো পলিথিনে মোড়ানো  লাশ নিয়ে করা হয়েছে ।  ২০১৫ সালে তৈরী চ্যানেলটিতে তখনই কিছু  ভিডিও দেয়া হয়েছিল  তারপরে আর কোন ভিডিও দেয়া হয়নি। 

৫) Benjamin Bennett

একজন লোক প্রায় ৪ ঘন্টা ধরে আপনার দিকে হাসি দিয়ে তাকিয়ে রয়েছে , মাঝে মাঝে মুখের ভাব পরিবর্তন করছে কিন্তু হেসে চলেছে আগের মতই ভাবুনতো একবার   কতটা বিরক্তিকর হবে ব্যাপারটি। 
এমনই একটি চ্যানেল হল Benjamin Bennett, বিতর্ক উঠেছিল যে এই তার এই ভিডিও দ্বারা মানুষকে সম্মোহন করতে পারেন , তবে যাই হোক  এখন তার ভিডিও প্রায় ২৭৬ টি সবগুলোতে তার একই কাজ  বসে শুধু হাসি দিয়ে ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে থাকা , Sitting and Smiling এই টাইটেলে তার ভিডিও গুলো বের হয় এবং # দিয়ে ভিইও সিরিয়াল নাম্বার দেয়া  থাকে। 

৬) The suicide mouse

মিকি মাউসকে কে না চিনে , হাস্যোজ্জল মিকি মাউসের একটি পুরাতন ভিডিও হঠাত করেই ইউটিউবে পাবলিশ হয়ে যায়  দ্যা সুইসাইড মাউস নামে ,  ধারনা করা হয় ডিজনির কোন অপ্রকাশিত আর্কাইভ থেকে  এটি প্রকাশিত হয়েছিল ,  রম্য রসাত্যক কোন সাউন্ড ছিল না এতে , স্বাভাবিক মিকি মাউস কেও দেখা যায়নি , কেন এইরকম কার্টুন পর্ব তৈরী করা হয়েছে তা যানা যায়নি তবে পরবর্তীতে বেশ কয়েকটি স্কুল পরুয়া তরুনের আত্বহত্যার জন্য এই ভিডিওটি দায়ী করা হয়।


ইউটিউবে অসংখ্য আজব ভিডিও রয়েছে যার পাওয়া যায় নি কোন ব্যাখ্যা। কিছু ইউটিউব নিজে সড়িয়ে দিয়েছে , কিছু আবার আপলোডার নিজে  সড়িয়ে দিয়েছে। গড় হিসেবে দেখা গেছে প্রতিদিন প্রায় ৬০ ঘন্টার ও বেশী  ভিডিও ইউটিউবে আপলোড হচ্ছে। কোনটি যে কোন উদ্দ্যেশ্যে  দেয়া হচ্ছে তা আসলেই বলা মুশকিল , কিছু বিতর্কিত কন্টেন্ট ছিল যা নিয়ে হয়েছে প্রচুর সমালোচনা, জল্পনা কল্পনা , ইউটিউব সে ক্ষেত্রে চ্যানেল পর্যন্ত রিমুভ করে দিয়েছিল , সেগুলো নিয়ে তাই আর কিছু লেখা হয়নি এখানে , উপরের প্রতিটি চ্যানেলে হয়তো সবাই  কৌতুহল নিয়েই যাবেন , তবে সবগুলোকে সাধারন ভিডিও হিসেবেই দেখবেন।

ডার্ক ওয়েব সহ ইন্টারনেট জগতের নানা অজানা রহস্য জানতে এই পোষ্ট গুলো পড়ে নিতে ভূলবেন না। 
Click here